সঠিক ওয়ার্ডপ্রেস থিম নির্বাচনের জন্য কিছু প্রয়োজনীয় টিপস

Shares

বর্তমানে সব চেয়ে সহজ এবং সুন্দরভাবে ওয়েবসাইট বানানোর কাজে ওয়ার্ডপ্রেস ব্যবহার করতে সবাই পছন্দ করে। ওয়ার্ডপ্রেস ওয়েবসাইট তৈরির জন্য প্রথম শর্ত হলো একটি থিম নির্বাচন করা। আমরা অনেকেই এ বিষয়টি নিয়ে এক ধরণের ধাঁধায় পড়ে যাই এই প্রশ্নে যে - "আমার ওয়েবসাইটের জন্য কোন থিমটি ভাল হবে?"

মনে এরকম হাজার প্রশ্ন আসা অস্বাভাবিক কিছু নয়। কারণ গুগলে শুধুমাত্র আপনি যদি লেখেন "WordPress Theme" এবং সার্চ করেন তাহলে প্রায় ৪৬,৬০০,০০০ টি রেজাল্ট আসবে। সুতরাং এর মধ্যে আপনি হাজারের মত থিম খুঁজে পাবেন - ফ্রী থিম অথবা প্রিমিয়াম থিম। সুতরাং কোন থিমটি সব থেকে ভাল আপনার ওয়েবসাইটের জন্য তা নির্বাচনের সুবিধার জন্য আজকে আমরা ওয়ার্ডপ্রেস থিম নির্বাচনের কিছু প্রয়োজনীয় টিপস নিয়ে আলোচনা করব।

বলে রাখা ভাল, এই আর্টিকেলে আপনাকে কোনো নির্দিষ্ট থিম কেনার জন্য উৎসাহিত করা হবে না। শুধুমাত্র কিছু প্রয়োজনীয় বিষয় যা থিম নির্বাচনের ক্ষেত্রে লক্ষ্য রাখা উচিৎ সেসব নিয়ে অবগত করা হবে।

  • সহজ এবং সাধারণ

অনেক ওয়ার্ডপ্রেস থিম বেশ কিছু রঙের ব্যবহার, জটিল লে-আউট এবং বিভিন্ন ধরণের অ্যানিমেশন সহ পাওয়া যায়। এসব থিমের প্রয়োজন আপনার হতে পারে কিন্তু বেশির ভাগ ক্ষেত্রে এ ধরণের থিমের আসলে প্রয়োজন হয় না। Leonardo da Vinci বলেছেন "Simplicity is the ultimate sophistication"। আপনার এমন একটি থিম নির্বাচন করা উচিৎ যা আপনাকে আপনার নির্ধারিত লক্ষ্যে পৌঁছে দিতে সাহায্য করবে। একজন ভিজিটর যখন কোনো ওয়েবসাইট ভিজিট করে, তখন সে যদি উক্ত ওয়েবসাইট এর লে-আউট বা ডিজাইন সহজ না পায় তবে পরবর্তীতে সে আপনার ওয়েবসাইট আর ভিজিট করতে চাইবে না। এটাই স্বাভাবিক। সুতরাং, থিমের ডিজাইন যদি অত্যন্ত সুন্দরও হয় এবং তা যদি আপনার ভিজিটরদের সেভাবে ফিরিয়ে আনতে না পারে জটিল লে-আউটের জন্য, তাহলে সেরকম থিমকে মোটেও ভাল বলা উচিৎ নয়।

  • থিম রেসপন্সিভ হওয়া আবশ্যক

পরিসংখ্যান মতে, ওয়েবসাইটে যত ভিজিটর আসে তার মধ্যে শতকরা ৫০ ভাগের বেশি আসতে পারে মোবাইল ডিভাইস থেকে। এছাড়া গুগল মোবাইল সার্চ রেজাল্ট-এ সর্বপ্রথম সে ওয়েবসাইটগুলোকেই দেখায় যেগুলো মোবাইল রেসপন্সিভ। সুতরাং, ওয়েবসাইটের বিষয় এবং লে-আউট অনুযায়ী ওয়েবসাইট সম্পূর্ণ মোবাইলে ভিজিট করার জন্য প্রস্তুত থাকা আবশ্যক। আপনি গুগল মোবাইল ফ্রেন্ডলি টেস্ট অনলাইন সফটওয়্যার ব্যবহার করে জেনে নিতে পারবেন আপনার থিম মোবাইল ফ্রেন্ডলি কি-না।

  • ব্রাউজার সাপোর্ট

কয়েক বছর আগেও আমরা একটি মাত্র ইন্টারনেট ব্রাউজারের সাথে পরিচিত ছিলাম এবন সেটি হল "Internet Explorer"। এ ব্রাউজার কম্পিউটারের উইন্ডোজ অপারেটিং সিস্টেমের সাথে পাওয়া যায়। কিন্তু এ ব্রাউজার থেকে আরো উন্নত ব্রাউজারের সাথে আমরা এখন পরিচিত হয়েছি। এছাড়া অন্যান্য অপারেটিং সিস্টেম যেমন - Mac ইউজারেরা Safari নামক ব্রাউজারও ব্যবহার করে থাকে। অবশ্য বর্তমানে Google Chrome এবং Mozilla Firefox ব্রাউজার অধিক জনপ্রিয়। এছাড়া রয়েছে Opera, UC Browser, Dolphin Browser এবং আরো অনেক। সুতরাং আপনার থিমটি প্রায় সকল ব্রাউজারে ঠিকভাবে দেখাবে কিনা সে বিষয়ে নিশ্চিত হওয়াও জরুরি। কম্পিউটারের ওয়েব ব্রাউজারের সাথে মোবাইলের ওয়েব ব্রাউজারেও চেক করা উচিৎ।

  • প্লাগিন সাপোর্ট

ওয়ার্ডপ্রেস কে শক্তিশালী করে তোলে ওয়ার্ডপ্রেস প্লাগিন। প্রায় সব ধরণের ডেভলপমেন্টের কাজ এইসব প্লাগিন দিয়ে করা সম্ভব। এমনকি অনেক কাজ যা কোডিং ব্যবহার করে করা কষ্টসাধ্য, তা ওয়েবসাইট প্লাগিন দিয়ে সহজেই আমরা করে ফেলতে পারি। সুতরাং আপনি যে ওয়ার্ডপ্রেস থিম নির্বাচন করবেন, সেই থিমে কিছু প্রয়োজনীয় প্লাগিন যেমন - Yoast SEO, Contact Form 7, W3 Total Cache ইত্যাদি আরো কিছু প্লাগিন সাপোর্ট করবে কিনা সে বিষয়ে নিশ্চিত হয়ে নেওয়া উচিৎ। এ বিষয়টি জানার জন্য আপনি থিম ডেভলপারকে জিজ্ঞেস করতে পারেন।

  • অনুবাদ প্রক্রিয়া

এমন অনেক ওয়ার্ডপ্রেস ওয়েবসাইট রয়েছে যা ইংরেজী ভাষায় তৈরি নয়। বাংলা, চাইনিজ, ফ্রেন্স, ইতালিয়ান এছাড়া বর্তমানে অনেক ভাষায় ওয়েবসাইট রয়েছে। অনেক ওয়েবসাইটে রয়েছে অনুবাদ প্রক্রিয়া। অর্থাৎ ধরুন ওয়েবসাইটটির মূল ভাষা হল ইংরেজী কিন্তু আপনি ঐ ওয়েবসাইট-ই একটি অন্য ভাষায় পড়তে পারবেন এবং তা হতে বাংলা ভাষা। আপনি নির্বাচিত থিমে এরকম কোনো সুবিধা আছে কিনা সে বিষয়েও একটু নিশ্চিত হয়ে নিতে পারেন।

  • পেজ বিল্ডার

কোডিং ব্যবহার করে কি না করা যায়! একটি সাধারণ ডিজাইনের পেজকে অসাধারণ বানিয়ে ফেলার জন্য কোডিং বিকল্প ছিল না। হ্যাঁ ছিল না, কিন্তু এখন অবশ্য আছে বললে মন্দ হয় না। কারণ পেজ বিল্ডার এমন-ই একটি জিনিস যা দিয়ে আপনার পেজ আরো আকর্ষণীয় ডিজাইনে করতে পারেন কোনো রকম কোডিং ছাড়াই! অনেক প্রিমিয়ার থিমে আগে থেকেই পেজ বিল্ডার ইন্সটল দেওয়া থাকে। সুতরাং, আপনার নির্বাচিত থিমে যদি পেজ বিল্ডারের সুবিধা থাকে তাহলে যথেষ্ট উপকার হবে। যদি আপনার থিমে পেজ বিল্ডার না থাকে তবে এটি প্লাগিন রূপে আপনি কিনতেও পারেন।

  • থিমের সাপোর্ট সুবিধা

সাধারণত ফ্রী থিমগুলোতে কোনো সাপোর্ট সুবিধা পাওয়ার সুযোগ থাকে না, কিন্তু অনেক ফ্রী থিমে ডেভলপার তা অফার করেও থাকে। আপনি যদি কোনো এলোমেলো করে ফেলেন আপনার ওয়ার্ডপ্রেস ওয়েবসাইটে, তখন কোনো ডেভলপার ছাড়া সেটি ঠিক করা কঠিন হয়ে যাবে যদি আপনি নিজে কোনো ডেভলপার না হন। প্রিমিয়ার থিমে সাধারণত ১ বছরের কাস্টমার সাপোর্ট নিশ্চয়তা এবং সাথে একটি Detailed Documentation পাওয়া যায়। সুতরাং, থিমের সাপোর্ট সুবিধা দেখে থিম নির্বাচন করা ভাল।

  • এস-ই-ও ফ্রেন্ডলি

আপনার ওয়ার্ডপ্রেস থিম এস-ই-ও ফ্রেন্ডলি কিনা সে বিষয়ে নিশ্তিত হওয়া জরুরি। অনেক ওয়ার্ডপ্রেস থিম এস-ই-ও ফ্রেন্ডলি হয় না যা সার্চ ইঞ্জিনে একটি খারাপ রিভিউ দেয়। সাধারণত প্রিমিয়ার থিমগুলোতে ডেভলপার থিম এস-ই-ও ফ্রেন্ডলি হওয়ার নিশ্চয়তা দেয়।

  • রেটিং এবং রিভিউ

থিমের গুণমান বিষয়ে ধারণার জন্য অন্যান্য ব্যবহারকারীরা উক্ত থিমে কেমন রেটিং এবং রিভিউ দিয়েছে তার দিকে একটু নজর দেওয়া যেতে পারে। কারণ রিভিউ যাচাইয়ের মাধ্যমে আপনি জানতে পারবেন এই থিম ব্যবহার করে অন্যান্য ব্যবহারকারীদের অভিজ্ঞতা কেমন।

আশা করি, এই টিপসগুলো আপনাকে আপনার ওয়েবসাইটের জন্য সঠিক থিম নির্বাচন করতে সাহায্য করবে।

কোনো সমস্যা হলে কমেন্ট বা সাপোর্ট-এ যোগাযোগ করুন অথবা ইমেইল করতে পারেন - asif@hostthewebsite.com

আমাদের কোম্পানি Host The Website সাশ্রয়ী মূল্যে বিভিন্ন ধরণের হোস্টিং প্যাকেজ অফার করে থাকে। আপনার যেকোনো ধরণের ওয়েবসাইটের হোস্টিং-এর জন্য এটি হতে পারে একটি সঠিক ঠিকানা।

Leave a Comment:

To Know Our Latest offers , Subscribe Us.

x